উন্নয়র পরকিল্পনা বাস্তবায়নে কাজ করতে প্রকৌশলীদরে প্রতি আহবান প্রধানমন্ত্রীর

উন্নয়র পরকিল্পনা বাস্তবায়নে কাজ করতে প্রকৌশলীদরে প্রতি আহবান প্রধানমন্ত্রীর
March 03 17:11 2018

খুলনা, ৩ র্মাচ, ২০১৮ (বাসস) : প্রধানমন্ত্রী শখে হাসনিা প্রকৌশলীদরে সরকাররে উন্নয়র পরকিল্পনা বাস্তবায়নে পশোগত
দক্ষতা, সততা ও নষ্ঠিার সঙ্গে আরও সক্রয়ি ভূমকিা পালনরে আহবান জানয়িছেনে।
তনিি বলনে, ‘সরকাররে উন্নয়ন পরকিল্পনা বাস্তবায়নরে দায়ত্বি আপনাদরে ওপরই র্বতায়। কাজইে উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদশে গড়ে
তুলতে আপনারা পশোগত দক্ষতা, সততা ও নষ্ঠিার সঙ্গে আরও সক্রয়ি ভূমকিা পালন করুন।’
শখে হাসনিা আজ দুপুরে আইইবি খুলনা সন্টোরে ইঞ্জনিয়র্িাস ইনস্টটিউিশন বাংলাদশে (ইআইব)ি-র ৫৮তম কনভনেশন অনুষ্ঠানরে
উদ্বোধনকালে প্রদত্ত ভাষণে একথা বলনে।
দশেরে সম্পদরে সীমাবদ্ধতা রয়ছেে উল্লখে করে প্রধানমন্ত্রী বলনে, স্বল্প খরচে টকেসই যন্ত্রপাতি নর্মিাণ, স্থাপনা নর্মিাণ ও
মরোমত বষিয়ে প্রচুর গবষেণা করতে হব।ে
তনিি বলনে, বকিল্প জ্বালানি ও জ্বালান-িসাশ্রয়ী যন্ত্রপাতি উদ্ভাবন, স্বল্প-ব্যয়ে বাড়ঘির নর্মিাণরে কৌশল ও প্রযুক্তি
উদ্ভাবনে আপনাদরে এগয়িে আসতে হব।ে
তনিি উন্নয়ন র্কমকান্ডকে টকেসই করার জন্য পরবিশে বান্ধন অবকাঠামো, ভূমকিম্প ও র্দুযোগ প্রবণ প্রযুক্তরি ওপরও
গুরুত্বারোপ করনে।
শখে হাসনিা বলনে, আমরা চাই দশেরে সকল নর্মিাণ কাজে যনে বাইররে থকেে প্রযুক্তি ধার করতে না হয়। আমাদরে প্রকৌশলীরাই
সব কছিুতে আত্মনর্ভিরশীল হয়ে উঠব।ে ইতোমধ্যইে আমাদরে অনকে তরুণ ও মধোবী প্রকৌশলী পৃথবিীর কোন কোন দশেরে ‘আইটি
ভলিজে’ে অনকে দক্ষতা ও সুনাম র্অজন করছে।ে
এটি আমাদরে জন্য অত্যন্ত র্গবরে।
ইআইব’ির প্রসেডিন্টে কবরি আহমদে ভূইয়ার সভাপতত্বিে অনুষ্ঠানে সংগঠনরে সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সবুর, ইআইবি খুলনা
কন্দ্রেরে চয়োরম্যান আব্দুল্লাহ সাদকি এবং কনভনেশন আয়োজক কমটিরি আহবায়ক মনরিুজ্জামান পলাশ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা
করনে।
প্রধানমন্ত্রী বলনে, র্দীঘ ৭০ বছর ধরে ইঞ্জনিয়র্িাস ইনস্টটিউিশন, বাংলাদশে দশেরে র্আথ-সামাজকি উন্নয়নে গুরুত্বর্পূণ ভূমকিা
রখেে চলছে।ে
তনিি বলনে, এ কনভনেশনরে মাধ্যমে আপনারা বগিত দনিরে র্কমকা-রে সাফল্য-র্ব্যথতার হসিাব-নকিাশ, বশ্লিষেণ-র্পযালোচনা
করনে। ভবষ্যিতরে জন্য দকি-নর্দিশেনা তরৈি করনে, যা আমাদরে দশেরে উন্নয়নে গুরুত্বর্পূণ ভূমকিা রাখ।ে
তনিি এ সময় দশেরে র্কীতমিান প্রকৌশলী ড. এম.এ. রশীদ, ড. এফ. আর. খান, আইইব’ির অন্যতম প্রতষ্ঠিাতা প্রকৌশলী এম.এ.
জাব্বারসহ আরও যাঁরা নজিদেরে মধো, যোগ্যতা ও সৃজনশীলতা দয়িে বাংলাদশেরে প্রকৌশল শক্ষিা এবং পশোকে আজকরে অবস্থানে
পৌঁছে দয়িছেনে তাঁদরে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করনে।
স্বাধীনতার পর জাতরি পতিার ডাকে সাড়া দয়িে যুদ্ধবধ্বিস্ত বাংলাদশে পুর্নগঠনে প্রকৌশলীরা গুরুত্বর্পূণ ভূমকিা রখেছেনে উল্লখে
করে সরকার প্রধান বলনে, অতি অল্প সময়ইে মধ্যইে তনিি বধ্বিস্ত রাস্তা, সতেু, কল-কারখানাসহ সকল অবকাঠামো সংস্কার ও
পুনঃনর্মিাণ করনে। মাত্র সাড়ে তনি বছরে জাতরি পতিা দশেকে একটা শক্ত ভত্তিরি উপর দাঁড় করাতে সক্ষম হয়ছেলিনে। কন্তিু ‘৭৫-
এর ১৫ই আগস্ট জাতরি পতিাকে নর্মিমভাবে হত্যার পর থমেে যায় উন্নয়নরে চাকা। দশে আবার পছিনরে দকিে যাত্রা কর।ে
র্দীঘ ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে তাঁর সরকার দশে শাসনরে দায়ত্বি নয়িে দশেরে উন্নয়নে মনোনবিশে করে উল্লখে করে তনিি বলনে,
আওয়ামী লীগ সরকার সব সময়ই প্রকৌশলীদরে পাশে রয়ছে।ে
প্রধানমন্ত্রী বলনে, ১৯৯৬ ময়োদে আমরা আইইবি ভবন নর্মিাণরে জন্য রমনায় ১০ বঘিা জমি প্রদান কর।ি আইইবি ভবন নর্মিাণে
প্রথম ৫ কোটি টাকা এবং এর র্উধ্বমুখী স¤প্রসারণরে জন্য পরে আরও ২৩ কোটি টাকা অনুদান দইে। ১৯৯৭ সালে ইঞ্জনিয়িারংি
স্টাফ কলজেরে জন্য ৭২ বঘিা জমি প্রতকিী মূল্যে প্রদানরে ব্যবস্থা কর।ি স্টাফ কলজেরে ১ম এবং ২য় র্পযায়রে কাজ বাস্তবায়নরে
জন্যও ৪৬ কোটি টাকা দওেয়া হয়।
তনিি বলনে, খুলনা কন্দ্রেরে জন্য কডেএি-এর জায়গা বরাদ্দ, র্পূবাচলে আইইব’ির জন্য ২ বঘিা জম,ি রাঙ্গাদয়িা, ময়মনসংিহ,
ফরদিপুর, দনিাজপুর কন্দ্রে এবং ফনেী ও কক্সবাজার উপকন্দ্রেরে জন্য জমি বরাদ্দ দওেয়া হয়ছে।ে ৭টি প্রকৌশল সংস্থার
প্রধান’কে গ্রডে-১ প্রদান করা হয়ছে।ে
বজ্ঞিান ও প্রযুক্তরি ক্ষত্রেে আমরা এখন আর পছিয়িে নইে উল্লখে করে প্রধানমন্ত্রী বলনে, তাঁর সরকার দায়ত্বি গ্রহণরে পর
থকেইে দশেকে ডজিটিালাইজশেন এবং প্রযুক্তি উন্নয়নরে জন্য কাজ করে চলছে।ে

তনিি বলনে, আমরা ই-গর্ভনন্সে চালু করতে বভিন্নি র্কাযক্রম হাতে নয়িছে।ি আমরা দশেবাসীর দোরগোড়ায় বজ্ঞিান ও তথ্য-
প্রযুক্তরি সুফল পৌঁছে দতিে চাই। প্রকৌশলীদরে মধোকে কাজে লাগয়িে আমরা এ প্রক্রয়িাকে আরও দ্রুত এগয়িে নতিে চাই।
তনিি এ সময় বএিনপ’ির কঠোর সমালোচনা করে বলনে, ১৯৯১-এর বএিনপি বনিে পয়সায় আন্তঃমহাদশেীয় সাবমরেনি ক্যাবল সংযোগ
নওেয়ার সুযোগ পয়েছেলি। তাদরে র্মূখতা ও অজ্ঞতার কারণে ঐ বনিে পয়সার সংযোগ থকেে আমরা তখন বঞ্চতি হই।
প্রধানমন্ত্রী বলনে, আমরা ১৯৯৬-এ দায়ত্বি গ্রহণরে পর এ সংযোগ গ্রহণরে উদ্যোগ নইি। আন্তঃমহাদশেীয় সাবমরেনি ক্যাবল
সংযোগে আমরা অংশীদার হয়ছে।ি এই সাবমরেনি ক্যাবল সংযোগ কোন কারণে কাটা পড়লে টলেি ও ইন্টারনটে সবো বঘিœিত হয়।
এজন্য দ্বতিীয় সাবমরেনি ক্যাবল সংযোগ আমরা গ্রহণ করছে।ি এর ফলে এ সঙ্কট দুর হওয়ার পাশাপাশি উচ্চগতরি ইন্টারনটে ও
ভয়সে সবোর র্সাবক্ষণকি সুবধিা পাবে দশেরে মানুষ।
তনিি বলনে, টলেফিোন ও মোবাইল ফোনকে গ্রামরে মানুষরে হাতরে নাগালে পৗেঁছে দয়িছে।ি ১ লাখ ২০ হাজার টাকার মোবাইল ফোন
র্বতমানে ২-৩ হাজার টাকায় পাওয়া যাচ্ছ।ে ফোর-জি ইন্টারনটে সবো চালু করছে।ি
অল্প কছিুদনিরে মধ্যইে বহুল প্রতীক্ষতি বঙ্গবন্ধু স্যাটলোইট উৎক্ষপেণ করা হবে উল্লখে করে শখে হাসনিা বলনে,
‘টলেযিোগাযোগ ক্ষত্রেে এটি যুগান্তকারী বপ্লিব সাধন করবে বলে আমার বশ্বিাস।’

write a comment

0 Comments

No Comments Yet!

You can be the one to start a conversation.

Add a Comment

Your data will be safe! Your e-mail address will not be published. Also other data will not be shared with third person.
All fields are required.