পোস্ট মাস্টার মিহির গোলদারের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দূর্নীতির তদন্ত শুরু বটিয়াঘাটা খুলনা

0
23
durniti

খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার বারআড়িয়া দূর্নীতিবাজ শাখা পোস্ট মাস্টার মিহির কান্তি গোলদারের বিরুদ্ধে শুরু হয়েছে অনিয়ম ও দূর্নীতির তদন্ত। বাংলাদেশ ডাক বিভাগের পিএমজি,ডেপুটি জেনারেল ও খুলনা দূর্নীতি দমন কমিশন বরাবর ৩ গ্রামবাসীর এক লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ২৭ মে ১৯ তারিখ খুলনা ডাক বিভাগের পক্ষথেকে শুরু হয়েছে এই তদন্ত।

তদন্তের দায়িত্ব পেয়েছেন ইনেস্পেক্টর বাবুল আক্তার। তদন্তে এসে তিনি প্রথম দিনে এলাকার ১০/১২ জনতার জবানবন্দি ও লিখিত অভিযোগ নেন। সূত্রে প্রকাশ, বাংলাদেশ ডাক বিভাগের পোষ্ট ই-সেন্টার নামে গ্রামঞ্চলের সাধারন জনগন সেবা থেকে বঞ্চিত।

ডাক বিভাগ গ্রামের অধিকাংশ পোষ্ট অফিসের পোষ্ট ই-সেন্টার নামে সরকার সাধারণ জনগণের জন্য সেবা গুলি নিশ্চিত করেন তা হলো কম্পিউটার প্রশিক্ষণ, কম্পিউটার প্রিডিং, কম্পিউটার কম্পোজ, ফটোকপি প্রিন্ট, ই- মেইল সেবা, ইন্টারনেট ব্রাউজিং, বিভিন্ন পরীক্ষার ফলাফল, ইন্টারনেটের মাধ্যমে ভর্তি ও চাকরির আবেদন সহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা রয়েছে

এই ডাক বিভাগের পোষ্ট ই- সেন্টার সেবা থেকে। শুধু তাইনা পোষ্ট মাষ্টার তার ছেলেকে উদ্যোক্তা পদে নিয়োগ দিয়ে ডাক বিভাগের উক্ত সম্পদ/মালামাল নিজেদের কাজে ব্যবহার করে থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ডাক বিভাগের মানি অর্ডার,মোবাইল ব্যাংক কিং এর কথা থাকলেও এখন আর ঐ সকল কতিপয় দূর্নীবাজ পোষ্ট মাষ্টার মিহির গোলদার মানি অর্ডার করেনা।

মানি অর্ডার নাকরে নিজেই বিকাশ,ডাস্ বাংলা মোবাইল ব্যাংককিং ও টেলিটক এর মাধ্যমে ব্যবসা করে চলেছেন। ডাক বিভাগের নেই কোন নিজস্ব জায়গা।

গ্রামাঞ্চলের অধিকাংশ ডাক বিভাগ গুলো ব্যাংগের ছাতার মত গড়ে উঠেছে মুদি দোকান ও বাসা বাড়িতে। তেমনি বারআড়িয়া পোষ্টটি একটি মুদি দোকানের ভিতর। আর এই কারণে সাধারণ মানুষ ডাক সেবা থেকে বন্চিত হচ্ছে।

ফলে সরকার উক্ত পোষ্ট অফিস থেকে প্রতিমাসে হাজার হাজার টাকা রাজস্ব থেকে বন্চিত হচ্ছে। ডাক বিভাগের কতিপয় কিছু দূর্নীতিবাজ পোস্ট মাষ্টারের দায়িত্ব অবহেলার কারনেই ডাক বিভাগের ভাবমুর্তী নষ্টের কারনেই এই সব পোষ্ট মাস্টাররা।

অভিযোগ রয়েছে এই দূর্নীবাজ পোষ্ট মাস্টার সরকারি মালামাল নিজের ছেলে ও নিজেদের ব্যাবসার কাজে ব্যবহার করে থাকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here