ফুটফুটে শিশুটি কি অকালে ঝরে যাবে…

0
42

খুলনা: নিষ্পাপ আনিশা জানে না তার জীবনের নিশ্বাসটুকু অন্যের দান করা এ পজেটিভ রক্ত প্রাপ্তির ওপর নির্ভরশীল। আর জানে না বলেই মিটি মিটি হাসছে ও। এ হাসি হয়তোবা কালের পরিক্রমায় স্নান হয়ে যেতে পারে ২০ লাখ টাকা ও রক্তের অভাবে।

২ বছর ৭ মাস বয়সের ফুটফুটে আনিশা দুরারোগ্য থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত। জন্মের মাত্র আট মাস বয়সে তার এ রোগ ধরা পড়ে। বোনমেরু ট্রান্সপ্লান্ট বা অস্হিমজ্জা পরিবর্তন করাই থ্যালাসামিয়া রোগের স্হায়ী চিকিৎসা।  বর্তমানে এই চিকিৎসার খরচ প্রায় ২০-২২ লাখ টাকা। খরচের টাকাটা অনেকের কাছে অতি তুচ্ছ হলেও আনিশারর পরিবারের কাছে অসম্ভব। চোখের সামনে একমাত্র সন্তানের তিলে তিলে শেষ হয়ে যাওয়া সহ্য করা অসহ্য বেদনা আনিশার মা-বাবার কাছে।

আনিশার পিতা সরকারি মজিদ মেমোরিয়াল সিটি কলেজের অস্থায়ী অফিস সহায়ক (অধ্যক্ষের কার্যালয়) আওছাফুর রহমান বলেন, মাত্র আট মাস বয়সে আনিশার দূরারোগ্য রোগ থ্যালাসেমিয়া ধরা পড়ে।  ঢাকায় গ্রিন ভিউ হাসপাতালের অধ্যাপক ডা. এ বি এম ইউনুস ও বাংলাদেশ থ্যালাসেমিয়া ফাউন্ডেশন আনিশার থ্যালাসেমিয়া রোগ নিশ্চিত করেছে। তার পর থেকে খুলনা সদর হাসপাতালের ডা. শারাফাত হোসাইনের তত্ত্বাবধানে ২ বছর ধরে প্রতি মাসে রক্ত দেওয়া হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা জানিয়েছেন অস্হিমজ্জা পরিবর্তন  করতে ২০-২২ লাখ টাকার প্রয়োজন।

তিনি আরও বলেন, মরণব্যাধি শরীরের মধ্যে রেখে  একমাত্র সন্তান চোখের সামনে প্রতিনিয়ত ঘুরে বেড়াচ্ছে বাবা হয়ে এই দৃশ্য দেখা অত্যন্ত কষ্টকর।যে সময় সন্তানের হাসিমাখা মুখ দেখে আনন্দ পাওয়ার কথা, ঠিক সে সময়ই সন্তানকে ঘাতক ব্যাধির গ্রাস থেকে ফেরানোর জন্য করূন আর্তি নিয়ে মানুষের দ্বারে-দ্বারে, বারে-বারে ঘুরে  বেড়াতে হচ্ছে। আনিশার চিকিৎসায় সহযোগিতার জন্য প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে আবেদন করেছি। তিনি  বলেন, সমাজের বিত্তবানরা যদি এগিয়ে আসেন তাহলে হয়তো আমার নিষ্পাপ মেয়েটি বেঁচে যেতে পারে।

অর্থাভাবে ফুটফুটে শিশু আনিশা এত সুন্দর পৃথিবীর মায়ার বন্ধন ছেড়ে অকালে ঝরে যাবে ? চিরদিনের জন্য হারিয়ে যাবে তার নির্মল হাসি ? নাহ ! পৃথিবী থেকে এখনো মানবতা হারিয়ে যায়নি, হারিয়ে যায় নি মহানুভবতা। সমাজের বিত্তবানরা এই নিষ্পাপ শিশুটিকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন। আপনার একটু সহানুভূতিতে আনিশা ফিরে পেতে পারে প্রাণসঞ্চার। যারা থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত আনিশার পাশে দাঁড়াতে চান তারা নিম্ন ঠিকানায় যোগাযোগ করতে পারেন-

আওছাফুর রহমান(পিতা) -যোগাযোগ-০১৯১৭-৪২৬২৯০, বিকাশ নং- ০১৭১২-৯৮৯১২৬, ব্যাংক হিসাব-০২০০০০২১৭০৫৮৮,অগ্রণী ব্যাংক লিঃ শামসুর রহমান রোড শাখা,খুলনা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here