কালিগঞ্জ বাঁশতলা কার্পেটিং সড়কটির বেহাল দশা দেখার কেহ নেই।

0
15
shatkhira road

 

কালিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ মোঃ ইমরান আলী

কালিগঞ্জ উপজেলার অতি ব্যস্ততম সড়ক বাঁশতলা থেকে কালিগঞ্জ সদর পর্যন্ত কার্পেটিং সড়কটির বেহাল দশা। চলতি বর্ষার শুরু থেকেই উক্ত সড়ক দিয়ে যানবহন চলাচলা অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। কিন্তু দেখার কেহ নেই। প্রতিনিয়ত ঘটছে ছোট-বড় দূর্ঘটনা। সড়কটি বেহাল দশা নিয়ে জাতীয়, আঞ্চলিক ও স্থানীয় পত্রিকা সহ অনলাইন এবং পেসবুকে ঝড় উঠলেও টনক নড়েনি কতৃপক্ষের।

প্রায় ৫ কিলোমিটার জুড়ে এমন বড় বড় খানাকন্দের সৃষ্ঠি হয়েছে যে, দেখলে মনে হবে রাস্তাতো নয় যেন মরণ ফাঁদ। জনদূর্ভোগ চরম পর্যায়ে পৌছালেও যেন দেখার কেউ নেই। ব্যবসায়ী ও শিক্ষার্থীরাসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষের চলাচলের এ সড়কটি সংস্কারের আশু প্রয়োজন।

“কার্পেটিং সড়ক নয় যেন রাস্তায় চলার পথের মরণ ফাঁদ”। রাস্তার দুই পাশে মাছের ঘের, পাশেরড্রেন দিয়ে নদীর পানি উঠানামা করে মৎস্য ঘেরে। কিন্তু বর্ষা মৌসুমে নদীর পানির প্রবল জুয়ারে ঐ রাস্তার উপর থাকে হাটু পানি। এমনিতে রাস্তার কার্পেটিং অনেক আগে থেকে নষ্ঠ হয়ে বেহাল দশার সৃষ্ঠি হয়েছে, তার উপর আবার নদীর জুয়ারের পানিতে চলাচলের কোন সুযোগ থাকেনা জনসাধারণের। অতিজন গুরুত্বপূর্ন এ সড়কটি দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ কার্পেটিং উঠে যেয়ে খানা খন্দে পরিনত হলেও সংস্কারের জন্য এগিয়ে আসেনি সংশ্লিষ্ঠ কতৃপক্ষ। জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রী সাধারণ এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করে থাকেন।

কালিগঞ্জ বাঁশতলা রাস্তার কফিলউদ্দিন হাফিজিয়া মাদ্রাসা থেকে বিষ্ণপুর বাজার পর্যন্ত জরাজীর্ণ। এর মধ্যে শ্রীপুর টেওরপাড়া ব্রীজের উভয় পাশে কার্পেটিং সড়কটি ছোট বড় খানা খন্দে এমনকি খালে পরিনত হয়েছে। মাঝে মধ্যে সড়কের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ড্রেনে নদীর জোয়ারের পানিতে নিমর্জ্জিত হয়ে থাকে সড়ক জুড়ে। এ হাল অবস্থা দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকলেও যেন দেখার কেউ নেই। নিত্য নৈমত্তিক ঘটছে ছোট বড় সড়ক দূর্ঘটনা। জীবন হানীর ঘটনাও এ সড়কে হয়ে থাকে। এমতাঅবস্থায় বাঁশতলা কালিগঞ্জ সড়ক আশু সংস্কারের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তা ব্যক্তিদের দৃষ্ঠি আকর্ষন করেছেন ভূক্তভোগী হাজার হাজার যাত্রী সাধারণ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here